দর্পণ ডেস্ক : এক ম্যাচ হাতে রেখেই সিরিজ জয়ের উৎসব বাংলাদেশের। বুধবার চতুর্থ টি-২০তে নিউজিল্যান্ডকে ৬ উইকেটে হারিয়েছে টাইগাররা। কিউইদের দেয়া ৯৪ রানের লক্ষ্য ৪ উইকেট ও ৫ বল হাতে রেখে পেরিয়ে যায় বাংলাদেশ।
৯৪ রানের জয়ের লক্ষ্যে খেলতে নেমে বিবর্ণ শুরু বাংলাদেশের। ১১ বলে ৬ রানে ফেরেন লিটন দাস। আগের ম্যাচে বাংলাদেশকে ভোগানো এজাজ প্যাটেল এক ওভারেই ফেরান সাকিব আল হাসান ও মুশফিকুর রহীমকে। অপ্রয়োজনীয় শট খেলে ফেরেন বাংলাদেশ দলের দুই ব্যাটিং স্তম্ভ। এজাজকে বেরিয়ে এসে খেলতে গিয়ে স্টাম্পড হন সাকিব (৮ বলে ৮ রান)। স্লগ সুইপ খেলতে গিয়ে বোল্ড হন মুশফিক।
সিরিজে দ্বিতীয়বার শূন্য রানে ফিরলেন তিনি। পাওয়ার প্লে’র ৬ ওভার শেষে বাংলাদেশের সংগ্রহ ছিল ৩ উইকেটে ৩২ রান। এরপর দলকে জয়ের পথে এগিয়ে নেন নাঈম শেখ ও মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ। দারুণ খেলতে থাকা নাঈম (৩৫ বলে ২৯ রান) অহেতুক দুই রান নিতে গিয়ে রান আউট হয়ে ফেরেন। ভাঙে ৩৫ রানের জুটি। বাংলাদেশকে জয় এনে দেন মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ। ৪৮ বলে ৪৩ রানে অপরাজিত থাকেন বাংলাদেশ অধিনায়ক। আফিফ হোসেন খেলেন ১০ বলে ৬ রানের অপরাজিত ইনিংস।
টসে হেরে বোলিংয়ের শুরুটা দারুণ করে বাংলাদেশ। প্রথম ওভারেই রাচিন রবীন্দ্রকে সাজঘরের পথ ধরান নাসুম আহমেদ। রানের খাতা খুলতে পারেননি রবীন্দ্র। দ্বিতীয় সাকিব আল হাসানকে ছক্কা হাঁকিয়ে ঝড় তোলার আভাস দেন ফিন অ্যালেন। সাকিবের ওভারে আসে ১০ রান। তৃতীয় ওভারে আবারো আক্রমণে আসেন নাসুম। রিভার্স সুইপ খেলতে গিয়ে পয়েন্টে সাইফুদ্দিনের হাতে ধরা পড়েন অ্যালেন (৮ বলে ১২ রান)।
নাসুম আবারো জোড়া আঘাত হানেন। মাঝে অবশ্য টম ল্যাথামকে (২৬ বলে ২১ রান) ফেরান শেখ মেহেদি। একই ওভারে নাসুমের শিকার হয়ে ফেরেন হেনরি নিকোলস (৫ বলে ১ রান) ও ডি গ্র্যান্ডহোম (১ বলে ০)। ৪ ওভারে ২ মেডেনসহ ১০ রানে ৪ উইকেট নেন নাসুম। যা এই বাঁহাতি স্পিনারের ক্যারিয়ার সেরা বোলিং। ৩.৩ ওভারে ১২ রানে ৪ উইকেট শিকার মোস্তাফিজের।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে