দর্পণ ডেস্ক : শুল্কমুক্ত বাজার সুবিধা সম্প্রসারণে ভুটানের সঙ্গে অগ্রাধিকার বাণিজ্য চুক্তি (পিটিএ) করতে বাংলাদেশ ও দেশটির মধ্যে স্বাক্ষরের জন্য একটি অগ্রাধিকার বাণিজ্য চুক্তি খসড়া অনুমোদন দিয়েছে মন্ত্রিসভা।

সোমবার (১৪ সেপ্টেম্বর) প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে ভার্চুয়াল মন্ত্রিসভা বৈঠকে এই অনুমোদন দেয়া হয়।

প্রধানমন্ত্রী গণভবন থেকে এবং সংশ্লিষ্ট মন্ত্রীরা সচিবালয়ে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে এই বৈঠকে সংযুক্ত ছিলেন।
বৈঠকে শেষে সচিবালয়ে ব্রিফিংয়ে মন্ত্রিপরিষদ সচিব খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম বলেন, এটা নিয়ে অনেক দিন ধরে আলোচনা হচ্ছিলো। ২০১০ সাল থেকে বাংলাদেশ-ভুটানকে ১৮টি পণ্যে শুল্কমুক্ত বাজার দিচ্ছি। আর বাংলাদেশের ৯০টি পণ্য ভুটানে শুল্কমুক্ত বাজার সুবিধা পাচ্ছে। পরবর্তী সময়ে ভুটান আরও কিছু শুল্কমুক্ত সুবিধা চাওয়ায় দুই দেশের দ্বিপক্ষিক অগ্রাধিকারমূলক বাণিজ্য চুক্তি নিয়ে আলোচনা শুরু হয়।

তিনি বলেন, ভুটানের প্রধানমন্ত্রী ২০১৯ সালের ১২-১৫ এপ্রিল বাংলাদেশ সফরকালে দুই প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে আলাপ-আলোচনা হয়। এরই ধারাবাহিকতায় ওই বছরের ২১-২৩ আগস্ট দেশটির থিম্পুতে বাংলাদেশ-ভুটানের মধ্যে ভিডিও কনফারেন্সিংয়ের মাধ্যমে মিটিং হয়। গত ১৯ জুন দ্বিতীয় সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে।

মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, এসব আলোচনা ও মিটিংয়ের মাধ্যমে একটা দিক-নির্দেশনা সাপেক্ষে পিটিএ ড্রাফট করে তা সোমবার মন্ত্রিসভায় উপস্থাপন করা হয়। মন্ত্রিসভা এটি অনুমোদন দেয়।

মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, ২০১৯ সালের ১২ থেকে ১৫ এপ্রিল ভুটানের প্রধানমন্ত্রীর বাংলাদেশ সফরকালে দুই প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে আলাপ-আলোচনা হয়। এরই ধারাবাহিকতায় ওই বছরের ২১ থেকে ২৩ আগস্ট ভুটানের থিম্পুতে বাংলাদেশ-ভুটানের মধ্যে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে মিটিং হয়। গত ১৯ জুন দ্বিতীয় সভা হয়। এর মাধ্যমে একটা দিকনির্দেশনা সাপেক্ষে পিটিএ ড্রাফট করে তা আজ মন্ত্রিসভায় উপস্থাপন করা হয়। মন্ত্রিসভা এটি অনুমোদন দেয়।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে