দর্পণ ডেস্ক : খুব ব্যস্ত সময় কাটাচ্ছেন সালমান খান। হাতে অনেক কাজ। তাই বনানীর এই আউটলেট উদ্বোধন করতে বৃহস্পতিবার সালমান খানের পরিবর্তে এসেছেন সোহেল খান। চলে যাবেন আগামীকালই। আবার কবে আসবেন— এমন প্রশ্নের উত্তরে সোহেল খান বলেছেন, ‘আগামীকাল ফিরে গিয়ে সুযোগ পেলে আবার পরশুই এখানে আসতে চাই। ঢাকার মানুষের হাসিমুখ দেখে আমি আনন্দিত। এই হাসিমুখ বারবার দেখতে চাই।’
প্রথমবারের মতো ঢাকায় এসে সালমানের চ্যারিটি প্রতিষ্ঠান ‘বিয়িং হিউম্যান’ এর ফ্যাশন হাউসের শোরুম উদ্বোধন করলেন। ‘বিয়িং হিউম্যান’ করোনাকালীন মুম্বাইসহ ভারতে ব্যাপক কাজ করেছে। বনানীতে এই চ্যারিটি প্রতিষ্ঠানের শো রুম উদ্বোধন করতে বৃহস্পতিবার সকালে ঢাকায় পৌঁছেন সোহেল খান। দুপুর ২টার দিকে তিনি বনানীতে আসেন৷ ফিতা কেটে ‘বিয়িং হিউম্যান’-এর শোরুম উদ্বোধন করেন বলিউডের এই অভিনেতা ও প্রযোজক।
এ সময় তিনি গণমাধ্যমের সঙ্গেও কথা বলেন। জানালেন, ঢাকায় প্রথমবারের মতো এই প্রতিষ্ঠানের শো রুম চালু করতে সালমানের পরিবার বেশ খুশি। বনানীর শোরুমটি জনপ্রিয়তা পেলে ফ্রাঞ্চাইজিটি আরও কয়েকটি শাখা চালু করবে বাংলাদেশে।
সোহেল খান জানান, অথচ আমি এখানে নামার আগে খুব নার্ভাস ছিলাম। মনে মনে ভাবছিলাম, সালমানের বদলে আপনারা আমাকে গ্রহণ করবেন তো!’
সালমান খানের পক্ষ থেকে এদেশে তার ভক্ত-অনুরাগীদের ভালোবাসা জানান সোহেল খান। এ সময় তিনি বাংলায় বলেন, ‘বাংলাদেশকে ভালোবাসি’।
বাংলাদেশের সিনেমা নিয়েও কথা বলেন সোহেল খান বলেন, ‘বাংলাদেশের সিনেমা আমি দেখেছি। ভাষাটা না বুঝলেও আমাদের কালচার তো একই। নাচ-গান-অভিনয়, দারুণ লাগে। তাছাড়া বাংলাদেশ এখন গ্রোয়িং কান্ট্রি। হলিউড, বলিউড, টলিউড, ঢালিউড- খুব দ্রুতই এক হয়ে যাবে। কারণ, এখন সিনেমাটা গ্লোবালি মুভ করছে।’

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে