ছবি: প্রতীকী

যুক্তরাজ্যের জাতীয় পরিসংখ্যান বিভাগের তথ্য অনুযায়ী, চলতি বছরের মে মাসের মূল্যস্ফীতি ১৯৮২ সালের মার্চের পর সর্বোচ্চ হয়েছে। তাছাড়া পরিস্থিতি আরও খারাপের আশঙ্কা করা হচ্ছে।

জানা গেছে, চলতি বছরে মার্কিন ডলারের বিপরীতে সবচেয়ে খারাপ পারফর্ম করার মুদ্রাগুলোর মধ্যে স্টারলিং অন্যতম।

এদিকে যুক্তরাজ্যের ধারাবাহিক মূল্যস্ফীতি ও অর্থনৈতিক স্থবিরতার কারণে অনেক বিনিয়োগকারী উদ্বেগ প্রকাশ করেছে। তাছাড়া জ্বালানি আমদানির বিল ও ব্রেক্সিট ইস্যুতে ইউরোপের সঙ্গে দেশটির বাণিজ্য সংকট দেখা দিতে পারে।

রেজোলিউশন ফাউন্ডেশন থিঙ্ক-ট্যাঙ্কের সিনিয়র অর্থনীতিবিদ জ্যাক লেসলি বলেন, অর্থনৈতিক পর্যবেক্ষণগুলো পরিষ্কার নয়। এখনো কেউ জানে না মূল্যস্ফীতির এই হার কোথায় থামাবে ও কখন থামবে।

এর আগে রেজোলিউশন ফাউন্ডেশন জানায়, ব্রেক্সিটকে কেন্দ্র করে দেশটিতে জীবনযাত্রার মান অসহনীয়ভাবে বেড়ে যাচ্ছে। মারাত্মক প্রভাব পড়ছে অর্থনীতির ওপর। দীর্ঘ মেয়াদে ক্ষতি হচ্ছে উৎপাদনশীলতা ও মজুরিতে।

সূত্র: দ্য গার্ডিয়ান