দর্পণ ডেস্ক : ইউক্রেনের দক্ষিণাঞ্চলীয় খেরসনের দিনিপ্রো নদীর পশ্চিম তীর থেকে নিজেদের সব সৈন্য পুরোপুরি সরিয়ে নিয়েছে রাশিয়া। এরপরই সেখানে প্রবেশ করতে শুরু করেছে ইউক্রেনীয় সশস্ত্র বাহিনীর সদস্যরা।
এদিকে পরিত্যক্ত অবস্থায় রাশিয়ার ফেলে যাওয়া এই শহরকে ফিরে পাওয়া ইউক্রেনের জন্য ঐতিহাসিক বলে মন্তব্য করেছেন দেশটির প্রেসিডেন্ট ভলোদিমির জেলেনস্কি। শনিবার (১২ নভেম্বর) এক প্রতিবেদনে এই তথ্য জানিয়েছে বার্তাসংস্থা রয়টার্স।
প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট ভলোদিমির জেলেনস্কি বলেছেন, রাশিয়া তার সেনাদের পুরোপুরি প্রত্যাহার করে নেওয়ার পর ইউক্রেনীয় সশস্ত্র বাহিনীর বিশেষ ইউনিট ইতোমধ্যেই দক্ষিণের শহর খেরসনে প্রবেশ করেছে। একইসঙ্গে এই মুহূর্তটিকে ঐতিহাসিক বলে বর্ণনা করেছেন তিনি।
চলতি বছরের ফেব্রুয়ারির শেষের দিকে আগ্রাসন শুরুর পর মার্চের প্রথম সপ্তাহে ইউক্রেনের অন্যতম প্রধান শহর এবং বন্দরনগরী খেরসন দখল করে নেয় রাশিয়া। এছাড়া প্রথম বড় কোনো ইউক্রেনীয় শহর হিসেবে খেরসন দখল করেছিল রুশ সেনারা। এর প্রায় দুই মাসের মাথায় খেরসনের পুরো অঞ্চলটি দখলে নেয় মস্কোর বাহিনী।
প্রায় ৩ লাখ বাসিন্দার খেরসন শহর ও অঞ্চলটি রাশিয়ার সামরিক বাহিনীর দখলে যাওয়া মস্কোর জন্য বড় ধরনের এক বিজয় বলে মনে করা হয়েছিল। মূলত রুশ সামরিক বাহিনীর জন্য গুরুত্বপূর্ণ একটি ঘাঁটিও ছিল এই শহরটি। তবে শুক্রবার রাশিয়ার প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের এক ব্রিফিংয়ে বলা হয়, ইউক্রেনের দক্ষিণের খেরসন অঞ্চলের দিনিপ্রো নদীর পশ্চিম তীর থেকে রাশিয়ার সব সৈন্য প্রত্যাহার পুরোপুরি সম্পন্ন হয়েছে।
মন্ত্রণালয় বলেছে, রাশিয়ার মোতায়েন করা সব সৈন্য ও যুদ্ধের সরঞ্জাম দিনিপ্রোর বাম অথবা পূর্ব দিকে স্থানান্তর করা হয়েছে। শুক্রবার মস্কোর স্থানীয় সময় ভোর ৫টার মধ্যে খেরসন থেকে সৈন্যদের সরিয়ে নেওয়ার কাজ পুরোপুরি সম্পন্ন হয়।
এএফপি বলছে, চলতি বছরের ফেব্রুয়ারি মাসে রাশিয়ার আক্রমণের পর থেকে রুশ সেনাদের দখল করা একমাত্র আঞ্চলিক রাজধানী ছিল খেরসন। শুক্রবার রুশ সেনারা সেটি পরিত্যাগ করার পর শহরের বাসিন্দারা উচ্ছ্বাস প্রকাশ করেন এবং শহরের কেন্দ্রে ইউক্রেনীয় সৈন্যদের স্বাগত জানান।
এরপরই শুক্রবার সন্ধ্যায় দেওয়া এক ভিডিও ভাষণে প্রেসিডেন্ট ভলোদিমির জেলেনস্কি বলেন, ‘আজ একটি ঐতিহাসিক দিন। আমরা দেশের দক্ষিণাঞ্চল ফিরে পাচ্ছি, আমরা খেরসনকে ফিরে পাচ্ছি।’ তিনি আরও বলেন, ‘এখন পর্যন্ত, আমাদের সেনারা শহরের উপকণ্ঠে রয়েছে, এবং আমরা শহরে প্রবেশের খুব কাছাকাছি রয়েছি। তবে ইউক্রেনীয় সামরিক বাহিনীর বিশেষ ইউনিট ইতোমধ্যেই শহরে অবস্থান করছে।’
জেলেনস্কি বলেন, খেরসনকে নিরাপদ করার ব্যবস্থা, বিশেষ করে শহরে পুঁতে রাখা প্রচুর মাইন অপসারণের প্রচেষ্টা যত তাড়াতাড়ি সম্ভব শুরু হবে।
তিনি আরও বলেন, ইউক্রেনীয় বাহিনী যুদ্ধক্ষেত্রের সর্বত্র তাদের অবস্থান শক্তিশালী করছে। তবে এর বিস্তারিত আর কিছু জানাননি তিনি।
এর আগে, গত বুধবার খেরসন অঞ্চল থেকে সৈন্য প্রত্যাহার করে নেওয়ার নির্দেশ দেয় রাশিয়া। সেই সময় মস্কো জানায়, ইউক্রেনের ক্রমবর্ধমান পাল্টা আক্রমণের মুখে আঞ্চলিক রাজধানী খেরসনের ভৌগলিক অবস্থান বজায় রাখা এবং সেখানে সৈন্য সরবরাহের প্রচেষ্টা ব্যর্থ হয়েছে।
অবশ্য খেরসন থেকে রাশিয়ার সৈন্য প্রত্যাহারের গতি যুদ্ধের শুরুর দিকে ইউক্রেনীয় সৈন্যদের হাত থেকে এই অঞ্চলের দখল ছিনিয়ে নেয়ার চেয়েও বেশি ছিল। যুক্তরাষ্ট্র বলেছে, রাশিয়ার সৈন্য প্রত্যাহারের এই গতি প্রত্যাশিতই ছিল।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে